বৃহস্পতিবার,  রাত ১০:৩৫  ♦  ৩০শে মার্চ, ২০১৭ ইং, ১৬ই চৈত্র, ১৪২৩ বঙ্গাব্দ ( বসন্তকাল ), ২রা রজব, ১৪৩৮ হিজরী  ♦
T4B Promotion
ওয়ার্ডপ্রেস টিপস
hmbashar
  • 29 টি টিপস
About Author

সুপ্রিয় TiPS4BLOG কমিউনিটি, আমি মোঃ আবুল বাশার, আপনাদের দারুন আর মানসম্মত টিপস নিয়মিত উপহার দেওয়ার লক্ষ্যে TiPS4BLOG সোসিয়াল নেটওয়ার্কের এর সাথে যুক্ত হয়েছি।

১ বছর ৬ মাস ২৯ দিন আগে
Payoneer Local Bank Transfer
বিভাগ: টিপস এন্ড ট্রিকস অক্টো. 14, 2015  -  9:34:48 পূর্বাহ্ন (  ১ বছর ৫ মাস ১৮ দিন  আগে  )

$25 বোনাস সহ ফ্রিতে Payoneer MasterCard নিন একদম ঘরে বসে [স্ক্রীনশর্ট সহ দেখুন]

অ-
অ+

আসসালামু আলাইকুম, কেমন আছেন সবাই? আশা করি ভালো আছেন? আমিও আপনাদের দোয়াতে ভালো আছি, আজ আপনাদের সাথে শেয়ার করব কিভাবে Payoneer MasterCard ফ্রিতে আপনি ঘরে বসে পেতে পারেন? তাও আবার 25 ডলার বোনাস সহ ?

বিজ্ঞাপন

Payoneer MasterCard কি কাজে লাগে বা এটা কিসের তা আশা করি বলতে হবে না, তারপরও সংক্ষেপে বলি:

Payoneer MasterCard কি কাজে লাগে? সুবিধা কি?

১. এটা দিয়ে বিশ্বের মধ্যে প্রায় ২০০+ দেশ থেকে লেনদেন করতে পারবেন।

২. বিশ্বের ৯০%+ মার্কেট প্লেস এই কার্ড সাপোর্ট করে, আপনি ঐ সকল মার্কেট প্লেস থেকে ইনকাম করে এই কার্ডের মাধ্যমে পেমেন্ট আনতে পারবেন, যেমন: upwork, freelancer, fiverr,clickbank ইত্যাদি।

৩. অধিকাংশ কাজের জন্যই পেপাল দরকার, কিন্তু আমাদের বাংলাদেশে পেপাল না থাকার কারনে অনেকের পেমেন্ট আনতে ঝামেলা হয়, সেই ক্ষেত্রে Payoneer MasterCard আপনাকে অনেকটা হেল্প করবে।

৪. Payoneer থেকে সরাসরি আপনার ব্যাংকে টাকা পাঠাতে পারবেন, প্রথমে মার্কেট প্লেস থেকে সরাসরি বাংলাদেশি ব্যাংক সাপোর্ট না করলে যদি Payoneer সাপোর্ট থাকে তাহলে প্রথমে মার্কেট প্লেস থেকে Payoneer এ পেমেন্ট দিতে পারবেন, এবং Payoneer থেকে সরাসরি আপনার যে কোন বাংলাদেশি ব্যাংকে পেমেন্ট দিতে পারবেন। এতে ডলার রেট বেশি পাওয়া যায় সরাসরি মার্কেট থেকে পেমেন্টর দেয়ার তুলনায়। আপনি যদি সরাসরি মার্কেট প্লেস থেকে ব্যাংকে পেমেন্ট দেন তাহলে ডলার রেট পাবেন 74.74 টাকা কিছুটা কম/বেশি, আর Payoneer থেকে দিলে প্রায়ই 77+ টাকা রেট পাওয়া যায়।

৫. Payoneer থেকে বাংলাদেশে যে কোন ব্যাংকে টাকা পাঠালে বর্তমানে কোন চার্জ কাটে না, সম্পূর্ণ ফ্রি।

৬. আপনি Payoneer থেকে আপনার যে কোন ব্যাংকে টাকা তুলতে পারবেন, যেমন: ব্র্যাক, ডার্চ-বাংলা ব্যাংক, ইসলামি ব্যাংক, ইত্যাদি।

৭. চাইলে সরাসরি বাংলাদেশে যে কোন ব্যাংকের ATM booth থেকেও এই কার্ড দিয়ে টাকা তুলতে পারবেন।

৮. আবার বিশ্বের বিভিন্ন স্থান/ওয়েব সাইট থেকে বিভিন্ন জিনিস ক্রয়ও করতে পারবেন।

৯. এটাতে USD এবং EUR দুই কারেন্সিতে লেনদেন করতে পারবেন।

১০. পূর্বে পেপালও ভেরিফাই করা যেতো, কিন্তু বর্তমানে যায় কিনা আমি সিওর না।

১১. কারো রেফারেলে রেজিস্ট্রেশন করলে ২৫ ডলার বোনাস পাবেন।

আরো আছে বেশি বাড়ালাম না, বাকিটা নিজে রিসার্চ করে যেনে নিবেন।

Payoneer Master Card এ বোনাস পাবেন কিভাবে?

১. প্রথমে আপনাকে যে কোন মার্কেট প্লেস থেকে কম পক্ষে ১০০ ডলার রিচার্জ করতে হবে, তাহলে আপনার ১০০ রিচার্জারের ২৪/৪৮ ঘন্টার মধ্যে আপনি বোনাস পাবেন।

২. আপনি এক সাথে ১০০ লোড করতে না পারলেও ভেঙ্গে ভেঙ্গে লোড করতে পারবেন খুচরা হিসেবে।

Payoneer MasterCard লোড করবেন কিভাবে?

১. প্রথমে যে কোন মার্কেট প্লেস থেকে লোড করতে হবে যতক্ষণনা ১০০ ডলার পূর্ণ হয়, ১০০ ডলার পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত আপনি অন্য কারো Payoneer MasterCard থেকে ডলার ট্রান্সফার করতে পারবেন না।

২. শুনেছি প্রথম লোড আপনি Skril থেকেও করতে পারবেন, আপনার যদি Skril এ একাউন্ট থাকে তাহলে আপনি অন্য কারো কাছ থেকে Skril ডলার ক্রয় করে Payoneer MasterCard এ লোড করতে পারবেন, এতেও বোনাস পাবেন, তবে আমি এটা সিওর না। Skril এ একাউন্ট না থাকলে সাইনআপ করতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন।

Payoneer রেজিস্ট্রেশন করতে আপনার কি কি দরকার হবে?

* ভোটার আইডি কার্ড/পাসপোর্ট/ড্রেরাইভিং লাইসেন্স, এই তিনটির মধ্যে যে কোন একটির স্ক্যান কপি।

তাহলে আর কথা না বারিয়ে কাজে চলে যাই:

Payoneer MasterCard রেজিস্টার করার পদ্ধতি

প্রথমে Signup করতে এখানে ক্লিক করুন। নিচের ছবিটি দেখু:

Screenshot_1

এবারে আপনি কার্ড দিয়ে কি করবেন তা জানতে চাইবে, এখানে Payoneer MasterCard সিলেক্ট করুন।

Screenshot_2

এরপরে যে ফর্মটি আসবে সেটি পূরণ করুন একদম আপনার আইডি কার্ড অনুসারে, যদি আইডি না থাকে তাহলে ড্রাইভিং লাইন্সেস, পাসপোর্ট যে কোন একটি থাকতে হবে। যদি এমন কিছু না থাকে তাহলে হবে না। তাহলে আপনার এই সকল ইনফোরমেশন নিচের ছবির মত সব কিছু ঠিক কি দিন।

Payoneer-Master-Card

এবার Next পেস করুন।

তারপর নিচের ছবির স্টেপও পূরণ করুন।

এখানে ঠিকানটা দিবেন এমন ভাবে যেন আপনাকে ঐ ঠিকানায় এসে কেহ খুজলে পাওয়া যাবে, যেমন আমি দিলাম, কওমি মাদরাসা, ছোট চৌরাস্তা, টাউন কালিকাপুর, পটুয়াখালী

Payoneer-Master-Card-1

শেষ হলে Next প্রেস করুন।

এবার এই ধাপটিও পূরর্ন করুন:

Payoneer-Master-Card-2

সকল তথ্যগুলোই গুরুত্বপূর্ণ, তাই সব কিছু সেইভ করে অথবা লিখে রাখুন।

এবার next প্রেস করুন।

পরবর্তী ধাপ দেখুন,

National-ID-Card-for-Payooneer

প্রথমে আপনার যে কার্ড আছে যেমন: ন্যাশনাল আইডি কার্ড/পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইন্সেস ইত্যাদি সিলেক্ট করুন, এরপরে সেই কার্ডের নাম্বার লিখুন, কোন দেশ থেকে কার্ড নিয়েছেন সেই দেশ (বাংলাদেশ) সিলেক্ট করুন।

নিচে দেখুন সিপিং অ্যাড্রেস নামে একটি অপশন আছে। আপনি যদি অন্য কোথাও থেকে থাকেন যে, আপনার আইডির ঠিকানা বাড়িতে, কিন্তু আপনি থাকেন ঢাকাতে, আর আপনি কার্ডটি পেতে চান ঢাকার ঠিকানায় তাহলে সিপিংটা সিলেক্ট করুন তাহলেই ঠিকানা চাইবে, আপনি ওখানে আপনার ঠিকানা দিন। আর উপরে যে ঠিকানা দেয়া হয়েছে তা অবশ্যই আপনার আইডির ঠিকানা হতে হবে।

সব শেষে নিচে দেখুন তিনটি অপশন আছে সব গুলোতে টিক দিন। এবার ফিনিসে ক্লিক করুন। এবার কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন, আপনাকে রিডায়রেক্ট করে লগইন পেজে নিয়ে যাবে

Security Questions

পূর্বেই একটি সিকিউরেটির প্রশ্ন লিখে ছিলেন, এখন লগইন করুন তারপর আরো দুইটি সেট করুন।

সকল ইনফো অবশ্যই সেইভ করে রাখবেন, কারন পরবর্তীতে সব কিছু যে কোন সময় দরকার হবে। বিশেষ করে কোন সমস্যায় পরলে সাপোর্ট সেন্টারে যোগাযোগ করলেই আগে এই সকল ইনফো জানতে চাইবে।

Screenshot_3

মনে রাখবেন, লগইন করতে গেলে সেখানে ইউজার নেম এবং পাসওয়ার্ড চায়, অনেকেই ভয় পেয়ে যায়, ইউজার আবার কি? আমিতো এমন কিছু দেইনি! ইউজার নেম হলো আপনি যে ইমেইল দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করেছেন সেই ইমেইলই ইউজার নেম।

সেখানে ই-মেইল পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন।

লগইন করলেই নিচের মত পেজ আসবে সেখানে দুটি প্রশ্ন সিলেক্ট করুন, এবং সাথে তার উত্তর দিন। (যদি লগইন করার সাথে সাথে না আসে তাহলে একাউন্ট থেকে একাউন্ট ইনফোরমেশনে ক্লিক করুন)

login-ques

এবার সাবমিটে ক্লিক করুন ব্যাস কাজ শেষ।

এবার অপেক্ষা করুন, আপনার সকল ইনফো তারা রিভিউ করবে এবং আপনার কাছে এমন একটি ই-মেইল যাবে,

Payoneer-Master-Card-Approval

Document Upload

কিছু দিনের মধ্যে আপনার ই-মেইলে এমন একটি মেইল আসবে তখন আপনি যে কার্ডের নাম/নাম্বার দিয়ে ছিলেন সেই কার্ড SCAN করে দুই পিটই এ সাথে করে Upload link এ ক্লিক করে আপলোড করে দিন। (পূর্বে এটা বাধ্যতামূলক ছিলো, কিন্তু ইদানিং দেখা যায় অনেকের এই মেইলটি আসে না, এবং কোন রকম ডকুমেন্ট চায় না, ডকুমেন্ট ছাড়াই কার্ড এপ্রুভ করে দেয়)

Payoneer-Master-Card-Apply-id-upload

ID example:

BD-ID-CARD

সব শেষে সাবমিট করুন।

এরপর আবার আপনার আইডিসহ সব কিছু রিভিউ করবে, কিছু দিনের মধ্যে আপনাকে একটি মেইল দেয়া হবে যদি আপনার সকল ইনফো ঠিক থাকে তাহলে আপনার রেজিস্ট্রেশনটি তারা এপরুভ করবে, এবং জানিয়ে দিবে আপনার কার্ড এপ্রুভ হয়েছে, আপনি কত তারিখের মধ্যে কার্ডটি পাবেন, যদিও এখানে বলে আপনি USA এর বাহিরে হলে ২৫ দিনের মত লাগবে, এখন সম্ভবত সর্বচ্চো ১০ দিনের মধ্যে পাওয়া যায়।

মাষ্টারকার্ড

আপনি লগইন করেও দেখতে পারবেন আপনি কোন অবস্থানে আছে।

এবং আপনি কার্ডটি কত তারিখ হাতে পাবেন সেই তারিখ দেখতে Payoneer ভিজিট করুন এবং আপনার ইমেইল এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন। View your status এ ক্লিক করুন তাহলেই দেখতে পাবেন।

Screenshot_12

USA এর মধ্যে হলে ১০-১৫ দিনের মধ্যে পাওয়া যায়, আর USA এর বাহিরে হলে ২৫-৩০ দিন লাগে। আমি পেয়ে ছিলাম ১৩ দিনের মধ্যে। তাই, আমাকে USA USA লাগতেছে :পি :পি।

Payoneer MasterCard Receive

এখন আপনার আরো একটি কাজ করতে হবে, তা হলো আমাদের বাংলাদেশের পোষ্ট অফিসের কাজ তেমন সুবিধার না। তারা ঠিক সময় বা সঠিক ব্যক্তির কাছে পার্সেল পৌছাতে মাঝে মাঝে ভুল করে। তাই আপনি ৫/৬ দিন পরে পোষ্ট অফিসে যোগাযোগ করে আপনার নাম এবং ফোন নং দিয়ে আসবেন। আপনার এলাকায় যে লোক চিঠি বিলি করে তার সাথে কথা বলবেন, তার ফোন নং নিয়ে আসবেন, এবং তাকে প্রয়োজনে 20 টাকা হাতে ধরিয়ে দিয়ে আসবেন, যে আমার নামে কিছু দিনের মধ্যে একটি চিঠি আসবে, যদি আসে একটু কষ্ট করে আমার ফোনে একটি মিসকল দিয়েন, তাইলে সে খুশিতে খুশিতে মিস দিবে। আমি শুধু আমাদের এলাকার ডাক পিয়নকে বলেছি, আবুল বাশার নামে যদি বাহিরের দেশে থেকে কোন চিঠি আসে, এবং ঠিকানা আমাদের এলাকার হয়, তাহলে কওমি মাদরাসায় যে কোন শিক্ষকের কাছে দিলেই হবে, কিন্তু সে একদম আমার বাসায় দিয়ে গেছে।

Payoneer MasterCard Active

যখন চিঠিটি হাতে পাবেন তার ভিতের আপনি এমন একটি কার্ড লাগানো দেখতে পাবেন, এটিই Payoneer MasterCard, কার্ডটি হাতে নিন।

Payoneer-Master-Card

কার্ডটি হাতে নিয়ে Active করার জন্য পুনরায় Payoneer ভিজিট করে লগইন করুন।

View Status এ ক্লিক করুন,

Screenshot

এবার নিচে মত আসবে।

Payoneer Card Active

এবারে উপরের ঘরে আপনার Payoneer MasterCard এর সম্পূর্ণ নাম্বার লিখুন।

নিচের দুই ঘরে চার সংখ্যার চারটি পিন দিন, যেটি সব সময় আপনার টাকা উত্তোলন করতে গেলে দরকার হবে।

এবং সব শেষে নিচের ঘর দুটিতে টিক দিন এবারে Active এ ক্লিক করুন। কাজ শেষ, এখন থেকেই Payoneer MasterCard ব্যবহার করতে পারবেন।

Payoneer MasterCard সতর্কতা

১. কার্ডটি কখনও কারো হাতে দিবেন না, কারন আপনার কার্ডের নাম, সম্পূর্ণ নাম্বারটি, কার্ডের মেয়াদ শেষের তারিখ, এবং পিছনে ৩টি গোপন পিন লেখা থাকে, এই বিষয় গুলো কেহ জানতে পারলে বা যদি লিখে নেয়, তাহলে আপনার Payoneer MasterCard থেকে অনলাইনে কেনাকাটা করতে পারবে, আপনি মাঝে মাঝে দেখবেন আপনার কার্ডের টাকা হওয়া ?

২. আপনার কার্ডের পিন কখনও কাউকে বলবেন না বা শেয়ার করবে না।

৩. আপনার Payoneer একাউন্টে কখনও অন্য কারো পিসি থেকে লগইন করবে না, তাহলে আপনার একাউন্টটি যে কোন সময় ব্যান হয়ে যেতে পারে। আবার তার পিসিতে কোন ভাইরাস জাতিও স্ক্রিপ্ট যদি ইন্সটল বা রান থাকে তাহলে আপনার ইউজার এবং পাসওয়ার্ড চলে যেতে পারে হ্যাকারের হাতে।

৪. যথা সম্ভব Payoneer থেকে সরাসরি আপনার ব্যাংকে টাকা তোলার চেষ্টা করবেন, কারন বাংলাদেশি ব্যাংকের এটিএম থেকে টাকা তুলতে গেলে মাঝে মাঝে টাকা আটকে যায়। তুলতে পারেন ব্র্যাক অথবা সব থেকে ভালো হয় স্টান্ডার চার্টার ব্যাংক, বা উন্নত ব্যাংকের বুথ থেকে।

Payoneer MasterCard কিছু সমস্যা এবং সমাধান

১. যদি দেখেন কখনও আপনি টাকা তুলতে গেলেন কিন্তু আপনার টাকা আটকে গেছে, মানে Payoneer MasterCard থেকে টাকা কেটে নিছে, কিন্তু আপনি বুথ থেকে টাকা পাননি, তাহলে ঐ ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করে কোন লাভ নেই, আপনি খুজে দেখুন ঐ বুথের যে কোন যায়গাতে একটি বুথ আইডি লেখা থাকে সেটা লিখে নিন এরপর আপনি সরাসরি  Payoneer এর সাথে সাপোর্ট সেন্টার যোগাযোগ করবেন, তারা আপনাকে একটি ফর্ম দিবে, ওটি পূরন করে তাদের মেইল করবেন তাহলে আবার টাকা আপনার একাউন্টে রিটার্ন চলে আসবে, অবশ্য এটা অটোমেটিকই আসে কোন রকম আবেদন ছাড়াই, প্রয়োজনে ৩ দিন অপেক্ষা করতে পারেন, ৩ দিনের মধ্যে না পেলে যোগাযোগ করুন। এটা নিয়ে আরো বিস্তারীত লিখবো, অন্য কোন সময়, এখন টিপসটি বড় করলাম না।

ধন্যবাদ সবাই ভালো থাকবেন।

[আবারো আসবো কিভাবে পেপাল Account বাংলাদেশ থেকেই খুলবেন, এবং তা ভেরিফাই করবেন?]

[বি: দ্র: একটি আইডি কার্ড দিয়ে একবার’ই apply করা যায়, যদি কোন ক্রোমে Payoneer MasterCard না আসে, তাহলে তাদের সাপোর্ট সেন্টারে কথা বলুন, তাহলে তারা আবার পাঠাবে। আর ২৫ ডলার বোনাস পাবেন যখন আপনি মাষ্টারকার্ড Active করবেন। তারপর সর্বপ্রথম যদি আপনি ১০০ ডলার রির্চাজ করেন তাহলেই ২৫ ডলার বোনাস পাবেন।]

যদি আপনার একাউন্টে কোন সমস্যা হয় তাহলে বাংলাদেশিদের জন্য রয়েছে বিশেষ সাপোর্ট, তবে অবশ্যই পূর্বে payoneer.com গিয়ে সাপোর্টে যোগাযোগ করতে হবে, যদি সেখান থেকে কোন সমাধান না পান তাহলে এখানে যোগাযোগ করতে পারেন। PayoneerSupportBD

পোষ্টটি যে কেহ কপি করি নিজের ব্লগে পোষ্ট করতে পারবেন, কিন্তু শর্ত হলো, পোষ্টে কোন যায়গা থেকে কিছু এডিট করা যাবে না, এবং এই পোষ্টের লিংক উল্লেখ করে বলে দিতে হবে, পূর্বে এই লিংকে প্রকাশিত।

Ads by rwc
বিজ্ঞাপন

নির্বাচিত টিপস মনোনয়ন

1

টিপসটি কি উপভোগ করেছেন?

এই টিপসের মতো এবং এরকম আরও ভালো মানের টিপসের জন্য ইমেইলের মাধ্যমে নিয়মিত আপডেট পেতে চাইলে TiPS4BLOG নিউজলেটারে সাবস্ক্রাইব করতে ভুলবেন না!

এছাড়াও আপনি পছন্দ করতে পারেন

3 টি মতামত

  1. Ehsan Abir says:

    বাংলাদেশে অবশ্য এখন সহজেই মাস্টারকারড পাওয়া যাচ্ছে। পেওনিয়ার এর কার্ডে অনেক ঝামেলা থাকে। সেই হিসাবে mastercards.co তে অনেক অনেক সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে। কার্ড ইস্যু ফি হচ্ছে ৪০ ডলার, যার কোন এক্সপায়ার ডেট নেই। কোন রিপ্লেসমেন্ট চার্জ, মাসিক চার্জ বা লেনদেন চার্জ দিতে হবে না। সহজে ফান্ড ডিপজিট এবং উত্তোলন করা জায়। পৃথিবীর যেকোনো প্রান্ত থেকে কার্ডে লেনদেন করা জায়।

  2. rakib islam says:

    আমি পেওনিয়ার খুলতে গিয়ে দেখি আমার কোন ব্যাংক একাউন্ট এর নাম্বার চায়! এখন কি করবো??

আপনার মতামত দিন

যদি আপনার কোন বক্তব্য থেকে থাকে অথবা আপনি কোন কিছু সুপারিশ করতে চান অথবা বোঝার ক্ষেত্রে কোন সমস্যা হয়, নিশ্চিন্তে নিচে মতামত দিতে পারেন। দয়া করে স্প্যামিং করবেন না এবং কোন বাজে ভাষা ব্যবহার করবেন না। আমরা আপনাদের কাছ থেকে অর্থবহ এবং গঠনমূলক মতামত আশা করি।


পাঁচ + = 7